27.1 C
Kolkata
27.1 C
Kolkata
বৃহস্পতিবার, মে 13, 2021

কমিশনকে কাঠগড়ায় তোলা থেকে বাঙালির প্যান্ডেল হপিং বন্ধ করা, একটাই নাম বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়

 

কমিশনকে কাঠগড়ায় তোলা থেকে বাঙালির প্যান্ডেল হপিং বন্ধ করা, একটাই নাম বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় 

কলকাতা মিডিয়া ওয়েবডেস্কঃ সোমবার সারা দেশ জুড়ে সংবাদ শিরোনামে ঘুরেফিরে উঠে এসেছে। একটই নাম মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। অকপটে দ্যর্থহীন ভাষায় যিনি নির্বাচন কমিশনকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে পারেন। বলতে পারেন ‘করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য দায়ী কমিশন। অফিসারদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু হওয়া দরকার। প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না জানালে ২ মে ভোট গণনা বন্ধ করে দেব।‘

এই বাঙালি বিচারপতি বারবার সংবাদ শিরোনামে জায়গা করে নিয়েছেন। কলকাতা হাইকোর্টের অন্যতম সিনিয়র বিচারক হিসেবে কাজ করে গিয়েছেন। ২০০৬-র মাঝামাঝি থেকে গত বছরের শেষ পর্যন্ত সামলেছেন কলকাতা হাইকোর্টের স্থায়ী বিচারপতির ভূমিকা।

২০২০ সালে করোনার প্রথম ধাক্কার সময় বাঙালির প্যান্ডেল হপিংয়ে যিনি বাধ সেধেছিলেন তিনি হলেন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সময় কলকাতা হাইকোর্টের অন্যতম সিনিয়র বিচারপতি পদে ছিলেন সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর ও বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ পুজোয় প্যান্ডেলে জনসাধারণের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারির সাহসী রায় দিয়েছিল।

 

করোনার বাড়বাড়ন্ত গতবারের কালীপুজোর সময় না কমায় গোটা রাজ্যে বাজি পোড়ানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারির রায়দানেও যুক্ত ছিলেন তিনি।

 

এখানেই শেষ নয় কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে বহু চর্চিত মামলার রায় যিনি দিয়েছেন তিনি বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়।করোনাকালে স্কুল বন্ধ থাকা সত্বেও অভিভাবকদের থেকে পুরো টাকা নেওয়ার অভিযোগে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন কিছু অভিভাবক। সেই মামলার রায়ে বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি মৌসুমি ভট্টাচার্য ২০২০-২১ অর্থবর্ষের জন্য বেসরকারি স্কুলগুলিকে পড়ুয়াদের থেকে নেওয়া টাকায় ২০ শতাংশ ফি-কমানোর নির্দেশ দেন।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও এলএলবি করার পর, তিনি কলকাতা হাইকোর্টে আইনজীবী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। সুপ্রিম কোর্টেও আইনজীবী হিসেবে তিনি সুনামের সঙ্গে কাজ করে ছিলেন। ২০০৬ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত কলকাতা হাইকোর্টে বিচারপতি হিসেবে কাজ করে গিয়েছেন। ২০২১ সালের অর্থাৎ চলতি বছরে চার জানুয়ারি মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_imgspot_img
- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img

Latest news

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -
- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img

Related news

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.